বা়ংলার প্রথম পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল সাহিত্য পত্রিকা
Browsing Tag

ভ্রমণকথা

জনৈক ভবঘুরের ডায়েরি

পাহাড়ের গা বেয়ে গুঁড়ি মেরে উঠে আসছে পরিচিত বিষাদ। আচ্ছন্ন হয় মন। আকাশের মুখ ভার। মেঘস্বর নিনাদিত পাহাড় থেকে পাহাড়ে। শুধু আসা-যাওয়া। একটু পরে অবশ্য উজ্জ্বল হয় আকাশের মুখ।

সুইটজারল্যান্ডের সৌন্দর্যলোকে

‘ইয়ডলিং’ দিয়ে তারা জড়ো করে তাদের মেষের পালকে। সুইস আল্পসের সেই ইয়ডলিং রপ্ত করেই সুরলহরীতে জাদুর পরশ এনে সকলকে মোহিত করে দিয়েছিলেন কিশোরকুমার।

নদীর দেশে, ফুলের দেশে

গ্রামটি শহরের কোলাহলের বাইরে পাহাড়ি নদী আর রডোডেনড্রন ফুল দিয়ে ঘেরা। আছে একটি ভিউ পয়েন্ট যেখান থেকে নয়নাভিরাম কাঞ্চনজঙ্ঘার দেখা পাওয়া যায়। আর আছে একটি সুন্দর ছোট্ট মনেস্ট্রি। আমরাও পায়ে পায়ে পৌঁছে গেলাম মনেস্ট্রি দেখতে।

ভূস্বর্গের তৃতীয় পথ

পথ কঠিন কিন্তু সৌন্দর্য অপার। আমার মতো শহুরে সাধারণের বর্ণনার বাইরে। সময় এখানে থমকে থাকে, ঘড়ির কাঁটার কথা সে মানে না। এ পথে একবার নয়, বার বার আসা যায় শুধুই একবার চোখে দেখার জন্য, অনুভব করবার জন্য।

বনপাহাড়ি

সাধারণত পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে যে-ধরনের আয়োজন থাকে, বনপাহাড়িতে তা নেই। বিশাল ডাইনিং হল, কন্টিনেন্টাল ডিশ, বাথরুমে গিজার, এসব কিচ্ছু নেই। শুধু প্রকৃতির নির্জনতা অটুট অমলিন আছে। আর আছে স্থানীয় মানুষদের খুশিবিশ্বাসী যাপনের ছবি।

ট্রান্স সাইবেরিয়ান ট্রেনে

প্রশান্ত মহাসাগর পাড়ে ভ্লাদিভস্তক (VLADIVOSTOK) থেকে সাতটি টাইম জোন পেরিয়ে ন’হাজার কিলোমিটারের বেশি ট্রান্স সাইবেরিয়ান রেলপথটি সাত দিনে পৌঁছে যায় মস্কো শহরে।

দু’চাকায় জঙ্গল ও সুবর্ণরেখা

আজন্ম কলকাতায় বড় হওয়া, ফোন না করে আত্মীয়-বন্ধুর বাড়ি না যাওয়া তথাকথিত ‘সভ্য’ মানুষ। অচেনা অজানা এক আদিবাসী পরিবারের কাছ থেকে এই আতিথেয়তা পেয়ে অভিভূত হয়ে বসে রইলাম।

জলবিভাজিকা পথে ইচ্ছেপাড়ি কুমারাকোম

কেরল রাজ্যের প্রায় ৯০০ কিলোমিটার খাঁড়িপথ ঘিরে সে এক অন্য জগৎ। প্রতিদিনের একমাত্র যানবাহন বলতে এই নৌকা। মালয়ালাম ভাষায় এই নৌকাগুলিকে বলা হয় ‘কেট্টুভালম’।

স্বপ্নে বুরহানপুর

উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের সেতু হিসেবে বুরহানপুর প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল মুঘল যুগে। তাই একে তৎকালীন সময়ে ভারতের রেনেসাঁর কেন্দ্রবিন্দুও বলে থাকেন অনেক পণ্ডিত। আকারে ছোট্ট বুরহানপুর ছিল তৎকালীন সময়ে সারা ভারতে শিল্প ভারসাম্যের প্রতীক।

মাণ্ডু

গায়িকার সঙ্গে সঙ্গে রূপমতী ছিলেন কবি। বাজবাহাদুরের আরও পত্নী থাকলেও রূপমতীর সঙ্গেই ছিল প্রাণের বন্ধন। গানবাজনা কবিতাচর্চা নিয়ে মশগুল ছিলেন তাঁরা। স্বভাবতই জলস্রোতের মতো মুঘল সেনার হাতে ভেঙে পড়ল মাণ্ডুর দুর্গ শহর। বাজবাহাদুর হেরে গিয়ে…