বা়ংলার প্রথম পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল সাহিত্য পত্রিকা

সৈয়দ কওসর জামালের দুটি কবিতা

মহড়া
খুব বেশি একাকিত্ব একাকিত্ব করছ। শুধু কোলাহল চাই, ভিড় চাই, অনন্ত কথার স্রোত চাই! নিভৃতিমাত্রই বিষময়। এভাবেই ক্রমশ খোলা পাতা হয়ে উড়ছে তোমার দিন— প্রতিটি পাতায় লেখা থাকে বেঁচে থাকার সরল এক পথরেখা। অথচ সামনে ওঁৎ পেতে আছে তির্যক পথের বাঁক, বাঁকের পিছনে অতল গিরিখাত, মৃত্যুর সংকীর্ণ ঠান্ডা চোখ। নিজেকে নিয়ে এই থাকা নিয়তির মতো-- ম্লান প্রদীপের শিখা জ্বলছে মাটির উঠোনে— অন্ধকার কুটিরের পাহারায় তারাও সতর্ক নয়। এ এক যাত্রার প্রস্তাব— অনন্ত কালের মহড়া এভাবেই শুরু— প্রাণ নেই, প্রেম নেই, বাঁচার আবেগটুকু উধাও কখন— কিছুই মঞ্চস্থ হল না এখনও। মঞ্চের আড়ালেও শোকের ছায়া, চোখজুড়ে অশ্রু ছলকে ওঠার আবছা দাগ; এও তো জীবন! যে হৃদয়ে কাটাছেঁড়া নেই, অন্তর্দহনের নীল বিষ কখনও জাগেনি চোখে, তারও কাটে এই একাকিত্বের রাত। ভোরের বাতাসে প্রথাগত জেগে ওঠে প্রাণ তবু তার চেয়ে থাকা ভরে ওঠে দীর্ঘশ্বাসে, হতাশায় যেন কেউ কেড়ে নিয়ে যাবে আয়ু, শ্বাসের অহংকারটুকু। কিছু শুকনো পাতা কুটিরে এদিকে ওদিকে ওড়ে, আমার কাছেও এসে বসে, ঈষৎ লাফাতে লাফাতে চলে যায় শেষ বসন্তের দিকে, জাগে হাহাকার মাতালের, পথিকের দৃষ্টি থেকে কাঁটাতার সরানো যাবে না আর। কে কাঁদে গ্রীষ্মের দিনে? নিস্পৃহ চোখের পাতাজুড়ে মায়াকাজলের রং অবশিষ্ট কিছু নেই আর, একাকিত্ব এক অদৃশ্য পরির ডানা— তাতে লিখে রাখে কেউ সন্ত্রস্ত ও অর্ধমৃত এক জীবনের কথা...
ঘরে ফেরার দিন
যখন হেঁটে ঘরে ফিরি
লক্ষ করেছি আমার পায়ের নীচে পিষ্ট হয়ে থাকে রাত
দূরে গিয়ে পিছন ফিরে দেখি, আবার মধ্যরাতের শহর
আলোছায়ায় ঘেরা, কিছুটা নির্জনতা মাখা, উঠে দাঁড়িয়েছে
পেছনে গাড়ির হর্ন ষাঁড়ের ঘোঁৎ ঘোঁৎ শব্দের মতো
আমি গ্রাহ্য করি না কিছু
এসময় যারাই ঘরে ফেরে, তাদের ব্যাগের ভেতরে জাদু
দু-এক টুকরো চাঁদের মাটি, কুকুরের ঘেউ ঘেউ, অনিদ্রা
আর অন্ধকার তাদের সঙ্গে বাড়ি অবধি ধাওয়া করে
বাইপাস ধরে যেতে যেতে ঘাড় ঘুরিয়ে দেখে যায় চাঁদ
আমি না পৌঁছোনো পর্যন্ত রাত বৃষ্টিঘন, তারও ঘুম পায়
ফুটপাতে শুয়ে থাকা নারীপুরুষের মধ্যে গিয়ে শোয়
বৃষ্টিতে ভিজতে থাকা মানুষের মতন চেহারা শহরের
শহরে কাল যে সূর্য উঠবে
দেখে নিয়ো, তার চেহারাও হবে মৃত্যুর ছায়ার মতন...
অঙ্কন : দেবাশীষ সাহা
(আগামী সপ্তাহে অণিমা মিত্রর কবিতা)

মহড়া খুব বেশি একাকিত্ব একাকিত্ব করছ। শুধু কোলাহল চাই, ভিড় চাই, অনন্ত কথার স্রোত চাই! নিভৃতিমাত্রই বিষময়। এভাবেই ক্রমশ খোলা পাতা হয়ে উড়ছে তোমার দিন— প্রতিটি পাতায় লেখা থাকে বেঁচে থাকার সরল এক পথরেখা। অথচ সামনে ওঁৎ পেতে আছে তির্যক পথের বাঁক, বাঁকের পিছনে অতল গিরিখাত, মৃত্যুর সংকীর্ণ ঠান্ডা চোখ। নিজেকে নিয়ে এই থাকা নিয়তির [...]


আপনি যদি ইতিমধ্যে সুখপাঠের গ্রাহক হয়ে থাকেন, তাহলে লগ ইন করুন।

আপনি যদি "সুখপাঠ"-এর গ্রাহক না হয়ে থাকেন তা হলে আপনার পছন্দ অনুযায়ী তিন মাস, ছয় মাস বা এক বছরের জন্য এখনই গ্রাহক হয়ে যান।
One Year Instant Access
Payment by Visa/Master Credit cardsa
$20/year*
Introductory Price
*Inclusive of GST