বা়ংলার প্রথম পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল সাহিত্য পত্রিকা

সম্পাদকীয়

গভীর স্পর্শের দিকে

এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে মানুষ কি একা? যে প্রাণপ্রবাহ পৃথিবীতে বয়ে চলেছে অবিরল, তার বাইরে অন্য কোথাও কি অন্য কোনও প্রাণের অস্তিত্ব আছে? সংশয় ও কৌতূহল দুই-ই বর্তমান তবে তার নিবৃত্তি ঘটেনি এখনও। ফলে অন্তত মানুষকে ভেবে নিতে হয় যে সে একা এবং একক। মানুষ ভাবতে পারে তাই ভাবে। প্রশ্নটায় দার্শনিক ছোঁয়া আছে। ততদূর কেউ নাও যেতে পারেন। বরং এটা ভেবে নেওয়া সহজ, আপাতত যে বস্তুজগতের ভেতরে আমাদের বসবাস সেখানে আর মানুষ একা কোথায়। আমরা কত মানুষ তো একে অপরের সঙ্গে যুক্ত হয়েই আছি। পাশাপাশি রয়েছি, মেলামেশা চলছে। মানুষ মানুষের সঙ্গেই থাকবে এ আর বড় কথা কী। প্রশ্ন এবং উত্তর যতটা সহজ, বিষয়টি আদতে তত সরল নয়। কেননা একইসঙ্গে রয়েছে বিচ্ছিন্নতাও। মানুষ পারস্পরিকভাবে কতটা যুক্ত আর কতটা বিচ্ছিন্ন, এই আধুনিক পৃথিবীতে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে, উঠছে।
আরও পড়ুন

প্রবন্ধ

স্মৃতি, সত্তা, বিচ্ছিন্নতা

প্রতিটি প্রজন্মই কি তবে আদতে সময়-বিচ্ছিন্ন? পূর্ববর্তী সময় থেকে বিচ্ছিন্ন না হলে কি প্রকাশ করা যায় ‘এই সময়’-এর খতিয়ান? সময় তো মুহূর্তে মরণশীল। আবার সংস্কৃতি বা ঐতিহ্যও তো অমর নয়। তারও তো গভীরে আছে ধ্বংসভাব।
আরও পড়ুন

বিশেষ রচনা

সাতষট্টিতে দেশে ফেরার পথে

পুরোনো রোমের দ্রষ্টব্য কিছু দেখেছি, বিশেষত কলোসিয়াম, কাটাকোম্ব ও মোসেস মূর্তি, কিন্তু মুখ্য সময় কেটেছে ভাটিকান মিউজিয়ামে। সিস্টিন চ্যাপেলই তো সোনার খনি। ঘাড় ব্যথা না করিয়ে কি আদম-জন্ম প্রতিভাত হবার?
আরও পড়ুন

ধারাবাহিক আত্মকথা

শেষবিকেলে সিমলিপালে পর্ব ৪১

সে পিস্তলে সাইলেন্সার লাগানো ছিল। জঙ্গলের মধ্যে বসে ঢুকঢুক করে বিয়ার খেত গোপাল এবং মুরগি কিংবা তিতিরের আওয়াজ পেলেই পিস্তল দিয়ে গুলি করে মারত। সাইলেন্সার লাগানো থাকায় পিস্তলের আওয়াজ বেশি হত না।
আরও পড়ুন

ধারাবাহিক উপন্যাস

এই মায়াপথ পর্ব ৯

সে উদাস হয়ে যেত। মনে ফুটে উঠত আগুনরঙা কৃষ্ণচূড়া। সাইকেল চালিয়ে সে কল্যাণী শহর পেরিয়ে যেত। ঘুঙুরখোলা নিসর্গ তাকে ডাকে, আকাশে পরিক্রমা সেরে পাখির ঝাঁক ফেরে, দূরতম পথের ইশারায় কেউ যেন তাকে ডেকে চলে।
আরও পড়ুন

রম্যরচনা

এসো বসো আহারে

ফুচকা, চিকেন ললিপপ, স্যান্ডুইচ, চাউমিন, এগরোল, বিরিয়ানি, মোগলাই, মোমোতে একেবারে বাজার ম ম করছে। তাই তো মাঝে মাঝে শাশুড়িমায়ের জন্য মনখারাপ হয়। আহা! জামাইষষ্ঠীর দিনগুলোতে কি রান্নাটাই না করতেন!
আরও পড়ুন

গল্প

শিরদাঁড়ার ফেরিওলা

বাবুসকল, গরিব মানুষের শিরদাঁড়া ভাঙতে কয়টা লকডাউন লাগে? ভাঙা মানুষের কথা বলি না৷ গরিব মানুষের কথা বলি৷ খেতে পায় না৷ কাজ নাই৷ কোথাও কাজ নাই৷ যার ছিল, তারও গেছে৷ স্কুল বন্ধ৷ কলেজ বন্ধ৷ পরীক্ষা বন্ধ৷ ট্রেন বন্ধ৷
আরও পড়ুন

কবিতা

ভিজছে উড়োজাহাজ

‘উলুখড়’-এর প্রকাশনায় প্রথম বই ‘কফিন কিংবা সুটকেশ’। আমরা খুবই উত্তেজিত। আমি, প্রিতম, দেবপ্রসাদ আর বুদ্ধদা একশো বই নিলাম। বাকি রইল আরও দেড়শো। পরে নেব। খুব খুশি বুদ্ধদা। বললেন একদিন আমাদের ‘ট্রিট’ দেবেন। দিলেনও।
আরও পড়ুন

পড়শি দেশের গল্পকথা

রাস্তার কুকুর

পাথরের আঘাতে যতবার কুঁইকুঁই করে ততবার ছেলেটা খিস্তি করে। অন্যান্যরা হেসে উঠলে ছেলেটা আরও উৎসাহিত হয়। এরকম একটা নোংরা কুকুর, যার জাত-ধর্ম ঠিক নেই তাকে উত্ত্যক্ত করাটা যেন স্বাভাবিক ঘটনা।
আরও পড়ুন

সাক্ষাৎকার

লোকবাদ্যের প্রেমে পড়ি ‘গুগাবাবা’ দেখে : মৃগনাভি চট্টোপাধ্যায়

ক্ষীরোদদাদুর সঙ্গে দেখা হওয়াটা আমার জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। এই শুরু হল আমার লোকবাদ্যের পথে যাতায়াত। আমার জীবনে দাদু ভবাপাগলা, পুরুলিয়া, সত্যজিৎ রায়ের মতো ক্ষীরোদ নট্টের ভূমিকা বিশাল।
আরও পড়ুন

ভ্রমণ

ভেনিস : মুখ, মুখোশ, মুরানো কাচ

মুখোশ বা মুরানো কাচের জিনিস কেনা মানে শুধু স্যুভেনিয়র কেনা নয়। তার সঙ্গে জড়িয়ে পেয়ে যাওয়া যায় কত পুরনো গল্প আর রোমাঞ্চকর ইতিহাস। বাড়ির আলমারিতে রাখা সেইসব স্যুভেনিয়রের দিকে তাকিয়ে মাঝে মাঝেই হারিয়ে যেতে পারেন সেই ইতিহাসে।
আরও পড়ুন

গাড়োয়ালের গহীন পথে পর্ব ১৩

সদ্যস্নাত দেওরিয়াতালের সবুজ মাঠে মনের আনন্দে ঘুরে বেড়াচ্ছে হিমালয়ের পাখিরা। ঢেউ খেলানো মাঠে একবার দেখা দিয়েই পরক্ষণেই দৃষ্টির আড়ালে চলে যাচ্ছে। ক্যামেরায় সহজে ধরা দিতে নারাজ।
আরও পড়ুন

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

নামিবিয়ার নোমাডদের আশ্চর্য মনঃসংযোগ

হিম্বারা তাঁদের পারিপার্শ্বিক জগৎকে অনেক নিরপেক্ষ ও নৈর্ব্যক্তিকভাবে দেখেন এবং আধুনিক সভ্যতার যেসব সুবিধে যেসব বিক্ষিপ্ততা তৈরি করে সেইসব হিম্বাদের মনোযোগকে ক্ষুণ্ণ করে না।
আরও পড়ুন

পরিবেশ

বিপন্ন সুন্দরবনের ভবিষ্যৎ

আর বড়জোর বছর দশেক এই দ্বীপের আয়ু। তারপরেই সম্পূর্ণ তলিয়ে যাবে গোটা একটা দ্বীপ। যেমন তলিয়ে গিয়েছে বেডফোর্ড, দক্ষিণ তালপট্টি, কাবাসগড়ি দ্বীপ। বা ঘোড়ামারার সংলগ্ন লোহাচড়া, খাসিমারা আর সুপারিডাঙার মতো বেশ কয়েকটা দ্বীপ।
আরও পড়ুন

বাংলাদেশের হৃদয় হতে

নাহিদা আশরাফীর দুটি কবিতা

এ কবিতা অপাঠ্য বলে গণ্য করা হোক সংসদীয় বিতর্ক— সন্ধ্যায় মালতীরা নিরাপদ নয় তবু সন্ধ্যামালতী নামে ফুল কেন ফোটে? ট্রাক— রাষ্ট্রের গায়ে কারা যেন গায়েবি হরফে লিখে দিয়েছে— ‘একশো হাত দূরে থাকুন।’ সাইনবোর্ড— ইদানীং চোখ বেশ পরিষ্কার…
আরও পড়ুন

ব্লগ

প্রতিপ্রস্তাব পর্ব ২৩

সত্যজিৎ যেমন ডি জে কিমারের, রাজেনও তেমনই ভারতের অন্যতম বৃহৎ বিজ্ঞাপন সংস্থা জে ওয়ালটার টমসনের আর্ট ডিরেক্টর ছিলেন। দু’জনের ছবিতেই এইজন্যে চিত্রকলার ছাপ, দৃশ্যরচনার দিক থেকেও।
আরও পড়ুন

চলচ্চিত্র

এবং বুদ্ধদেব

ব্যাকরণ মেনে চলার কোনও অ্যাকাডেমিক বাধ্যবাধকতা চলচ্চিত্রের নেই, আরও প্রকৃষ্টভাবে বললে বলা যায় এরকম কোনও সদিচ্ছাই তার কোনওদিন ছিলও না। এরকম ভাবনাকে মাথায় রেখেই যেন বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের চলচ্চিত্রের দুনিয়ায় পদার্পণ।
আরও পড়ুন

সঙ্গীত

অথ পঞ্চম কথা

তেত্রিশ বছরের ফিল্ম মিউজিক কেরিয়ারে আর. ডি. বারবার প্রমাণ করেছেন, ইচ্ছে করলেই তিনি রাগসঙ্গীত হোক, ফোক বা ওয়েস্টার্ন, সব করতে পারেন। ক্ল্যাসিকালের ধাঁচ ভেঙে সুর করে সান্ত্বনা খোঁজেননি। আসলে রাহুলদেবের মূল্যায়ন এক ধৃষ্টতা।
আরও পড়ুন

নাটক

স্বাতীলেখা : এক সম্পূর্ণ অভিনেত্রীর নাম

অসম্ভব ভাল গাইতে পারতেন তিনি। ‘ফেরিওয়ালার মৃত্যু’ নাটকের বিরতি হত তাঁর গানেই। সব গুণ ছিল তাঁর। নাচ, গান, কবিতা, বাজনা আর অভিনয়। একজন দক্ষ অভিনেতা হতে গেলে যা যা দরকার, সব।
আরও পড়ুন

ফিরে পড়া

নব ডাকাতের ডায়েরি

ছুটিয়া ছুটিয়া পথ চলিয়া দু’ মিনিটের মধ্যেই যদিও একটা আঘাটায় আসিয়া পৌঁছিলাম, কিন্তু নৌকা তখন প্রায় মধ্য-জলে সশব্দে বাহিত হইয়া চলিয়াছে ; তাহার নিশানখানা অন্ধকারেও দুলিয়া দুলিয়া আমার পরিত্যক্ত অসহায় অবস্থা দেশ পূর্ণভাবেই ইঙ্গিত করিয়া…
আরও পড়ুন

লোক

বহুরূপী : লোকশিল্পের প্রায় লুপ্ত অধ্যায়

পশ্চিম বাংলার বর্ধমান, বীরভূম, বাঁকুড়া, হুগলি জেলায় আছেন বেশ কয়েকজন। পশ্চিম বর্ধমানের কাঁকসা ব্লকের বিদবিহার গ্রামপঞ্চায়েতের অন্তর্গত রাজহাট গ্রামের অতীত পরিচয় ‘ডাকাতদের গ্রাম’ হলেও বর্তমান পরিচয় ‘বহুরূপীদের গ্রাম’ হিসেবে।
আরও পড়ুন

বইপত্র

প্রসন্নের পাঠশালা : লোহা নামক কবিতার বই

টানা গদ্যে লেখা কবিতাগুলো কিছুতেই মনোটোনাস হতে দেয় না পাঠষ্ক্রিয়াকে। আসলে মাত্রাবৃত্ত, স্বরবৃত্ত, অক্ষরবৃত্ত শেষে জীবন তো বিশুদ্ধ গদ্য ছন্দ। নিরাবেগে ঘটে যায়। ঘটে যাওয়াই নিয়তি।
আরও পড়ুন

বাংলা বিজ্ঞাপনের সাত-সতেরো

বাংলা বিজ্ঞাপনের, মূলত ছাপা বিজ্ঞাপনের, একবারে সদ্য শৈশব থেকে বিংশ শতাব্দীর আশি-নব্বইয়ের দশক পর্যন্ত নানান তথ্যের সমবায়ে সমীর ঘোষ তাঁর ‘প্রসঙ্গ বাংলা বিজ্ঞাপন’ বইতে ঠিক কী করতে চেয়েছেন তার হদিশ পাওয়া যায় ‘বই-সম্পর্কে’ শিরোনামের সূচনাকথা…
আরও পড়ুন